শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ০২:৪২ অপরাহ্ন

বার বার হয়রানির শিকার হচ্ছেন স্কুল শিক্ষক হাফিজুল

রির্পোটারের নাম
  • খবর আপডেট সময় সোমবার, ১ জুলাই, ২০২৪
  • ১৭৮ এই পর্যন্ত দেখেছেন

জামালপুরের বকশীগঞ্জে বার বার হয়রানির শিকার হচ্ছেন রওশন আলম মো: হাফিজুল হক নামে এক প্রাইমারী স্কুল শিক্ষক। আদালতের রায় ও পুলিশের আইন কিছুই মানছেনা প্রাইমারী স্কুল শিক্ষক হাফিজুল হকের প্রতিপক্ষ বকশীগঞ্জ উপজেলার সূর্য্যনগর পশ্চিমপাড়ার সন্ত্রাসী আবুল হাসেম(৫০) গং। ফলে নিজ বসত বাড়ী ভোগ দখল করতে পারছেনা স্কুল শিক্ষক রওশন আলম মো: হাফিজুল হক।
জানা যায়, বকশীগঞ্জ উপজেলার সূর্য্যনগর পশ্চিমপাড়ার গ্রামের বাসিন্দা ও সারমারা সরকারি প্রাইমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক রওশন আলম মো: হাফিজুল হক ৩৩ শতক জমি ক্রয় করে বসতবাড়ি নির্মাণ করেন। সেই বসতবাড়ি থেকে শিক্ষক রওশন আলম মো: হাফিজুল হককে উচ্ছেদ করে তার বসত বাড়ি জবর দখল করে নেন একই গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে আবুল হাসেম গং। আবুল হাসেম গং এর সন্ত্রাসী হামলা ও জীবনের ভয়ে নিজ বসতবাড়ী ও বসতভিটা ছাড়তে বাধ্য হন শিক্ষক হাফিজুল হক ও তার পরিবার। তার পরেও আবুল হাসেম গং জামালপুরের বিজ্ঞ আদালতে ২৭.১২.২০২৩ সালে হাফিজুল হকের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন। আদালতে আদেশে মামলাটি তদন্ত করেন বকশীগঞ্জ পৌর সভার মেয়র নজরুল ইসলাম। তিনি সরেজমিনে তদন্ত করে আদালতে একটি তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। তদন্ত প্রতিবেদনে বাদীর অভিযোগ মিথ্যা বলে মন্তব্য করেন তদন্ত কর্মকর্তা বকশীগঞ্জ পৌর মেয়র নজরুল ইসলাম। তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর বিজ্ঞ আদালত শিক্ষক রওশন আলম মো: হাফিজুল হককে মামলা থেকে অব্যাহতি ও মামলাটি খারিজ করে দেন। মামলা খারিজ হওয়ার পরেই সন্ত্রাসী আবুল হাসেম গং আরও ক্ষুব্ধ হয়ে উঠে। ফলে হাফিজুল হক বার বার আবৃুল হাসেম গং কর্তৃক হামলার শিকার হন। প্রতিবারই হাফিজুল হক থানা পুলিশের সহায়তায় উদ্ধার পেয়েছেন এবং প্রতিটি ঘটনারই জিডি হয়েছে বকশীগঞ্জ থানায়। কিন্তু হাফিজুল হকের বসতবাড়ি উদ্ধার হয়নি। ফলে কোন উপায় না পেয়ে হাফিজুল হক জামালপুরের বিজ্ঞ আদালতে আবুল হাসেম গং এর বিরুদ্ধে একটি উচ্ছেদ মামলা দায়ের করেন। আদালতের র্নিদেশক্রমে মামলাটি তদন্ত করছেন বকশীগঞ্জ উপজেলার সহকারী কমিশনার ভূমি। তদন্ত প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে।
এব্যাপারে অভিযুক্ত আবুল হাসেম জানান, শিক্ষক রওশন আলম মো: হাফিজুল হকের অভিযোগ ডাহা মিথ্যা। আমি কারও জমি ও বসতবাড়ি জবর দখল করি নাই।
এব্যাপারে শিক্ষক রওশন আলম মো: হাফিজুল হক জানান, প্রতিপক্ষ আবুল হাসেম গং সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক। তারা যে কোন সময় আমাকে এবং আমার পরিবারের লোকজনকে খুন জখম করতে পারে। তাই আমি যত বারই হামলার শিকার হয়েছি ততবারই আইনের আশ্রয় নিয়েছি। তারা আদালত ও পুলিশ কিছুই মানছেনা। আমার বসতবাড়ী জবর দখল করে রেখেছে। ফলে আমি নিজ বাড়ী ও বসত ভিটায় বসবাস করতে পারছিনা। বার বার তাদের দ্বারা লাঞ্চনার শিকার হয়ে আসছি। আমি ন্যায় বিচার চাই।

দয়া করে খবরটি শেয়ার করুর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরিতে আরো যেসব খবর রয়েছে
© কপিরাইট ২০১৭ গণজয়
CodeXive Software Inc.
themesba-lates1749691102