January 28, 2021, 9:38 am
প্রধান শিরোনাম :
অর্থ সংকট ॥ মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে অগ্নিদগ্ধ মাতৃহীন শিশু জান্নাত বকশীগঞ্জে লটারিতে জিতেও ১১ ছাত্রী স্কুলে ভর্তির সুযোগ পাননি বকশীগঞ্জে আলো সেচ্ছাসেবী রক্তদান সংগঠনের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত  ইসলামপুরে অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্ত ভিক্ষুক পরিবারের খোঁজ নিলেন ইউএনও  জুমানের নেতৃত্বে সাবেক ছাত্রনেতাদের উপস্থিতিতে বিজয়ের জন্মদিন পালিত  ফার্মা এন্ড ফার্ম আবুল কালাম আজাদের স্বপ্ন পুরণে কাজন করছে কবিরাজের ঝাড়ঁফুকঁ ছাড়া বিরল রোগে আক্রান্ত খাদিজার ভাগ্যে ২০ বছরেও চিকিৎসা জুটেনি বিপ্লব আওয়ামীলীগের বন ও পরিবেশ উপ-কমিটি’র সদস্য মনোনীত সময় টিভির স্টাফ রিপোর্টার ও ক্যামেরা পার্সন হামলার শিকার সাংবাদিক খাদেমুল হক বাবুল মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত 

সরিষা ফুলের মধু সংগ্রহে ব্যস্ত মৌ-চাষিরা

রির্পোটারের নাম
  • খবর আপডেট সময় Sunday, December 20, 2020
  • 87 এই পর্যন্ত দেখেছেন

নিজস্ব প্রতিনিধি॥
বকশীগঞ্জে সরিষা ফুলের মধু সংগ্রহে ব্যস্ত সময় পার করছেন মৌচাষিরা। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে প্রায় ৫ শতাধিক মৌচাষি এসেছেন বকশীগঞ্জে। প্রায় একমাস সরিষা ফুল থেকে মধু সংগ্রহ করবেন তারা। সরিষা ফুলের মধু খাটি ও সুস্বাধু হওয়ায় এর চাহিদাও বেশ।
জানা যায়, বকশীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় মাঠের পর মাঠ সরিষার ফুলে হলুদের সমারোহ। চোখ মেললেই মন জুড়িয়ে যায়। নয়ানিভিরাম দিগন্ত জোড়া মাঠে সরিষার ফুল থেকে মধু সংগ্রহে ব্যস্ত সময় পার করছেন দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা মৌচাষিরা। উপজেলার মেরুরচর, নিলাক্ষিয়া, সাধুরপাড়া, বাট্টাজোড়,কামালপুর, বগারচরসহ বিভিন্ন ইউনিয়নে চাষকৃত সরিষা ক্ষেতে মধু সংগ্রহ করতে ব্যস্ত সময় পার করছেন মধু সংগ্রহকারীরা। সরিষা ক্ষেতের পাশেই সারিবদ্ধ করে রেখেছেন কাঠের তৈরি মৌমাছি ভর্তি বাক্স। মাছির ভনভন শব্দে এখন মুখরিত দিগন্ত জোড়া ফসলের মাঠ। এই মৌসুমে কয়েক কোটি টাকার মধু সংগ্রহ করবেন চাষীরা। সরিষা ফুলের মধু খাঁটি ও সুস্বাদু হওয়ায় এর চাহিদাও বেশ। দুর দুরান্ত থেকে ব্যবসায়ীরা এসে মধু কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। বকশীগঞ্জের মধু দেশের বিভিন্ন স্থানসহ বিদেশেও রপ্তানি হচ্ছে বলে জানান চাষীরা। প্রতিকেজি মধু পাইকারী ২০০ থেকে ২২০ টাকা দরে বিক্রি করা হচ্ছে।
মৌ-চাষিরা জানান,মধু সংগ্রহের জন্য স্টিল ও কাঠ দিয়ে তৈরি করা হয় বাক্স। বাক্সের ভেতরে এক ধরনের সিট লাগানো থাকে। পরে সেগুলো সরিষা ক্ষেতের পাশে সারিবদ্ধভাবে রাখা হয়। প্রতিটি বক্সে থাকে একটি করে রানি মৌমাছি। যাকে ঘিরে আনাগোনা করে হাজারো পুরুষ মাছি। পুরুষ মাছি গুলো সরিষা ফুল থেকে মধু সংগ্রহ করে। একেকটি বাক্সে তিন থেকে চার হাজার পুরুষ মৌমাছি থাকে। ফুল থেকে মৌমাছিরা মধু এনে বাক্সের ভেতরের চাকে জমা করে। চাকের বাক্সের মাঝখানের নিচে ছিদ্র করে রাখা হয়। সে পথ দিয়ে মৌমাছিরা আসা-যাওয়া করে। বাক্স থেকে প্রতি সপ্তাহে একবার করে মধু পাওয়া যায়।
খুলনা জেলার কয়ড়া থেকে আসা মৌ-চাষি মহি উদ্দিন বলেন, বছরে ৬ মাস মধু আহরণ করে থাকি। অন্য ৬ মাস কৃত্রিম পদ্ধতিতে চিনি খাইয়ে মৌমাছিদের পোষে রাখা হয়। নভেম্বর থেকে এপ্রিল পর্যন্ত মধু সংগ্রহের উপযুক্ত সময়।
বাগেরহাট থেকে আসা মৌ-চাষি হারুন মিয়া জানান,শীত বেশি থাকার কারনে মধু জমতে সময় একটু বেশি লাগছে। তাছাড়াও দামও একটু কম। ২০০ থেকে ২২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে মধু।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আলমগীর আজাদ জানান,সরিষা ফুলে মধু সংগ্রহে সরিষার কোন ক্ষতি হয়না। বরং ফসলের ফলন আরও ১০ ভাগ বেশি হয়। মধু চাষে ব্যবসায়ীরা যেমন লাভবান হচ্ছে তেমনি কর্মসংস্থানও হচ্ছে বলে জানান তিনি।

দয়া করে খবরটি শেয়ার করুর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরিতে আরো যেসব খবর রয়েছে
© কপিরাইট ২০১৭ গণজয়
CodeXive Software Inc.
themesba-lates1749691102